1. [email protected] : adamtindale37 :
  2. [email protected] : adriannabayldon :
  3. [email protected] : aileenconover :
  4. [email protected] : alhisobel732 :
  5. [email protected] : anaetle :
  6. [email protected] : anneliese45o :
  7. [email protected] : annettpinschof5 :
  8. [email protected] : aureliomkd :
  9. [email protected] : bernadine23v :
  10. [email protected] : bevpeg46568019 :
  11. [email protected] : bibleoma7548733 :
  12. [email protected] : billahn98938216 :
  13. [email protected] : blakelapointe74 :
  14. [email protected] : blephlowthrapo1972 :
  15. [email protected] : brigidafriday71 :
  16. [email protected] : camillabedford2 :
  17. [email protected] : carrollaugustin :
  18. [email protected] : catherinekovach :
  19. [email protected] : chanelxzs137054 :
  20. [email protected] : chastity2422 :
  21. [email protected] : cindifinkel17 :
  22. [email protected] : cliffrenfro :
  23. [email protected] : corinehvs48 :
  24. [email protected] : dariosexton :
  25. [email protected] : delilahparkman6 :
  26. [email protected] : demetra39t :
  27. [email protected] : dewittlions788 :
  28. [email protected] : dillonhennings3 :
  29. [email protected] : dollieveal01369 :
  30. [email protected] : editor :
  31. [email protected] : edwinmeeks265 :
  32. [email protected] : eileenmason7 :
  33. [email protected] : ernesto4701 :
  34. [email protected] : ezequielwest :
  35. [email protected] : ferdinandchun8 :
  36. [email protected] : filomenamcclung :
  37. [email protected] : gabrielle2001 :
  38. [email protected] : gastonskidmore :
  39. [email protected] : genevaotis39228 :
  40. [email protected] : gitagula259925 :
  41. [email protected] : gretchenstreeten :
  42. [email protected] : harrietpan0461 :
  43. [email protected] : harriettcornwell :
  44. [email protected] : hayleytillyard :
  45. [email protected] : herman3043 :
  46. [email protected] : idajeffcott0500 :
  47. [email protected] : indianaennis9 :
  48. [email protected] : jacquettakilfoyl :
  49. [email protected] : jai28e9203282506 :
  50. [email protected] : jamallardner0 :
  51. [email protected] : jeannedonaghy83 :
  52. [email protected] : jerrellgowlland :
  53. [email protected] : jestineheaney35 :
  54. [email protected] : joleenbeem933 :
  55. [email protected] : jonathonazc :
  56. [email protected] : jorglingle67019 :
  57. [email protected] : josephine1606 :
  58. [email protected] : juliannekyt :
  59. [email protected] : karlplain607542 :
  60. [email protected] : kathleneteece :
  61. [email protected] : keishaw359367698 :
  62. [email protected] : kimberlyapplerot :
  63. [email protected] : kratos :
  64. [email protected] : lamarsceusa25 :
  65. [email protected] : latesharbr :
  66. [email protected] : latiaraney2 :
  67. [email protected] : leatha76s909 :
  68. [email protected] : leonorababbidge :
  69. [email protected] : lilaburdett :
  70. [email protected] : lloydballow60 :
  71. [email protected] : madelaine76i :
  72. [email protected] : mahaliavalenti9 :
  73. [email protected] : mairaboldt :
  74. [email protected] : maple4294413853 :
  75. [email protected] : margaretastrempe :
  76. [email protected] : margeryerlikilyi :
  77. [email protected] : mariomichels45 :
  78. [email protected] : maya96978917376 :
  79. [email protected] : mervinono2 :
  80. [email protected] : mikeloyola2603 :
  81. [email protected] : mirtappp01 :
  82. [email protected] : mohamed21y :
  83. [email protected] : nellie4308 :
  84. [email protected] : otistressler111 :
  85. [email protected] : pat1548391593 :
  86. [email protected] : paulina4920 :
  87. [email protected] : quentinteeple :
  88. [email protected] : randolphligar20 :
  89. [email protected] : regenayxn87 :
  90. [email protected] : reinaldoventers :
  91. [email protected] : renato1824 :
  92. [email protected] : rileyvosper507 :
  93. [email protected] : rocuouh :
  94. [email protected] : romasetme :
  95. [email protected] : rufuslowrie917 :
  96. [email protected] : sally5095281573 :
  97. [email protected] : shaunamcmillan9 :
  98. [email protected] : sherilipscomb76 :
  99. [email protected] : shermancatlett :
  100. [email protected] : standelacruz12 :
  101. [email protected] : suzette50z :
  102. [email protected] : sylvestermakutz :
  103. [email protected] : sylviao91603 :
  104. [email protected] : talzdarreg :
  105. [email protected] : test31494848 :
  106. [email protected] : test43965969 :
  107. [email protected] : test6737221 :
  108. [email protected] : tiffanyherringto :
  109. [email protected] : tylerlindsay59 :
  110. [email protected] : vernonpritchett :
  111. [email protected] : violettelaidler :
  112. [email protected] : waldohutcheson2 :
  113. [email protected] : waldow5841095968 :
  114. [email protected] : wendybrittain7 :
  115. [email protected] : willholcombe298 :
  116. [email protected] : yurgarland :
  117. [email protected] : zack61314479007 :
শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ০৪:৫৩ অপরাহ্ন

৬০ টাকার নিচে আলু-টমেটো ছাড়া সবজি নেই!

দৈনিক সময়ের সংবাদ অনলাইন
  • আপডেট : শুক্রবার, ১২ মে, ২০২৩
  • ২২৬ দেখা হয়েছে
টানা দাবদাহে দেশের সবজি উৎপাদনকারী জেলাগুলোয় চলতি মৌসুমে সবজি অনেক কম উৎপন্ন হয়েছে। যেটুকু উৎপন্ন হয়েছে কৃষকের কাছ থেকে তা বাড়তি দামে কিনতে হচ্ছে পাইকারি ব্যবসায়ীদের। একইভাবে পাইকারি ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে বাড়তি দামে কিনছেন ৬০ টাকার নিচে সবজি নেইখুচরা ব্যবসায়ীরা। আর তাঁদের কাছ থেকে ভোক্তাসাধারণ কিনছে আরো বেশি দামে। তিন হাত ঘুরে ভোক্তা পর্যায়ে পৌঁছানো পর্যন্ত সবজির যে দাম দাঁড়িয়েছে তাতে নাভিশ্বাস উঠেছে সাধারণ মানুষের। বর্তমানে আলু ও টমেটো ছাড়া বাজারে কোনো সবজি পাওয়া যায় না ৬০ টাকা কেজির কমে। উৎপাদন কমে যাওয়ায় রাজধানীর সবচেয়ে বড় পাইকারি বাজার কারওয়ান বাজারেও দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে সবজিবাহী ট্রাক আসার সংখ্যা কমে গেছে।

উত্তরাঞ্চলে সবজির সবচেয়ে বড় পাইকারি বাজার মহাস্থান হাট। এই হাট থেকে পাইকাররা সবজি কিনে রাজধানীসহ দেশের অন্যান্য শহরে নিয়ে যান। উৎপাদন কমে যাওয়ায় এক সপ্তাহ ধরে মহাস্থান হাটে সবজির সরবরাহ কমে গেছে। ফলে কৃষক পর্যায়ে ও পাইকারি বাজারে ক্রমপর্যায়ে বাড়ছে সবজির দাম।

কৃষক ও ব্যবসায়ীরা জানান, রোজার ঈদের আগে থেকে দাবদাহ চলছে। খরায় ক্ষেতের সবজি অর্ধেক নষ্ট হয়ে গেছে। খরচ ওঠাতে কৃষকরা বাড়তি দামে সবজি বিক্রি করছেন। এ কারণে পাইকারি হাটেও বেশি দামে সবজি বিক্রি করা হচ্ছে। ব্যবসায়ীরা বলছেন, এতে কৃষক লাভবান হচ্ছেন। তবে কৃষকরা বলছেন, তাঁদের উৎপন্ন ফসল অর্ধেক নষ্ট হয়ে যাওয়ায় লাভ তো দূরের কথা খরচ ওঠাতেই তাঁরা হিমশিম খাচ্ছেন।

এদিকে সবজি সরবরাহ কমে যাওয়ার অজুহাতে রাজধানীর বাজারগুলোয় বেড়েছে প্রায় সব ধরনের সবজির দাম। টমেটো ও আলু ছাড়া রাজধানীর বাজারে বর্তমানে ৬০ টাকার নিচে কোনো সবজি বিক্রি হচ্ছে না। গত এক সপ্তাহের ব্যবধানে বেশির ভাগ সবজির দাম কেজিতে বেড়েছে ১০ থেকে ১৫ টাকা। সবচেয়ে বেশি বেড়েছে কাঁচা মরিচ ও পেঁপের দাম। পেঁপের রেকর্ড দাম বেড়ে প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ৮০ টাকায়। কাঁচা মরিচ খুচরায় প্রতি কেজি ১৬০ থেকে ২০০ টাকা। তবে ভ্রাম্যমাণ ভ্যানে পেঁপে ও কাঁচা মরিচ প্রতি কেজিতে ১০ থেকে ২০ টাকা কম দামে পাওয়া যাচ্ছে।

খুচরা ব্যবসায়ীরা বলছেন, পাইকারি বাজারে সবজির সরবরাহ কমে যাওয়ায় দাম বাড়ছে। চাহিদা অনুযায়ী সবজি পাচ্ছেন না তাঁরা। গতকাল বৃহস্পতিবার রাজধানীর কারওয়ান বাজার, রামপুরা, বাড্ডা ও জোয়ারসাহারা বাজার ঘুরে এবং ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে এসব তথ্য পাওয়া গেছে। বাজার ঘুরে দেখা গেছে, খুচরা পর্যায়ে এক সপ্তাহ ধরে সবচেয়ে বেশি দাম বেড়ে বিক্রি হচ্ছে কাঁচা মরিচ, পেঁপে ও পেঁয়াজ। কাঁচা মরিচ কেজিতে ৪০ থেকে ৬০ টাকা বেড়ে ১৬০ থেকে ২০০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। পেঁপে কেজিতে ২০ টাকা বেড়ে ৮০ টাকা এবং পেঁয়াজ কেজিতে আরো ১০ টাকা বেড়ে ৬৫ থেকে ৭০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। একই সঙ্গে বাজারে অন্য প্রায় সব ধরনের সবজি কেজিতে ১০ থেকে ১৫ টাকা বেড়ে বিক্রি হচ্ছে। বেগুন প্রতি কেজি ৮০ টাকা, করলা (উস্তা) কেজি ৮০ থেকে ৯০ টাকা, লম্বা করলা কেজি ৮০ টাকা, কাঁকরোল কেজি ১০০ টাকা, ঝিঙা কেজি ৮০ টাকা, পটোল কেজি ৬০ টাকা, ঢেঁড়স কেজি ৬০ টাকা, চিচিঙ্গা কেজি ৮০ টাকা, শসা (দেশি) কেজি ৬০ টাকা, টমেটো কেজি ৫০ টাকা, চালকুমড়া প্রতি পিস ৬০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

আগে থেকে বাড়তি দামে বিক্রি হওয়া আদা ও রসুনের দাম আরো বেড়েছে। দেশি ও আমদানি করা রসুন কেজিতে ১০ থেকে ২০ টাকা বেড়ে ১৫০ থেকে ১৬০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। আদা কেজিতে আরো ২০ থেকে ৩০ টাকা বেড়ে ২৫০ থেকে ৩০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। খোলা চিনি প্রতি কেজি বিক্রি করা হচ্ছে ১৩৫ থেকে ১৪০ টাকায়। প্যাকেটজাত চিনি বাজার থেকে উধাও। প্রতি কেজি আলু বিক্রি করা হচ্ছে ৩৫ থেকে ৪০ টাকায়।

পাঁচ টাকা বেড়ে ডিমের ডজন বিক্রি হচ্ছে ১৪৫ টাকায়। গত ৪ মে নতুন করে ভোজ্য তেলের দাম লিটারে ১২ টাকা বাড়িয়েছে সরকার। নতুন দরে বাজারে বর্তমানে এক লিটারের বোতলজাত সয়াবিন তেল ১৯৯ টাকায় বিক্রি করা হচ্ছে। এত দিন এই দাম ছিল ১৮৭ টাকা। সপ্তাহের ব্যবধানে বাজারে মুরগির দাম কিছুটা কমলেও এখনো বাড়তি দামেই বিক্রি করা হচ্ছে। ব্রয়লার মুরগির কেজি ২১০ থেকে ২২০ টাকা এবং সোনালি মুরগির কেজি ৩২০ থেকে ৩৩০ টাকা।

বাজারে সবজির দাম অনেক বাড়ায় ফুটপাতের খাবারের দোকানগুলোয় মাছের তরকারির সঙ্গে সবজি না দিয়ে শুধু আলু দিয়ে বিক্রি করতে দেখা গেছে। গতকাল রাজধানীর কুড়িল বিশ্বরোড এলাকায় ফুটপাতের এক দোকানে এই চিত্র দেখা গেছে। জানতে চাইলে হোটেলের মালিক আব্দুল মালেক কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘বেগুনের কেজি হয়ে গেছে ৮০ টাকা। অন্য সবজিও ৬০ থেকে ৭০ টাকার নিচে কেনা যায় না। এ কারণে সবজি কেনা বাদ দিয়েছি। এখন মাছের তরকারিতে সবজি দিতে গেলে খাবারের দাম বাড়াতে হবে।’

রাজধানীর রামপুরা কাঁচাবাজারের সবজি বিক্রেতা জসিম উদ্দিন গতকাল কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘কারওয়ান বাজারে সবজির আমদানি অনেক কমে গেছে। ওই বাজারে চাহিদা অনুযায়ী সবজি না পাওয়ায় দাম ক্রমেই বাড়ছে। আগে আমরা যে সবজি একজনে কিনতাম, এখন আমদানি কম থাকায় আড়তদাররা সেই সবজি দুজনকে ভাগ করে দিচ্ছেন।’

রাজধানীর উত্তর বাড্ডা কাঁচাবাজারের সবজি বিক্রেতা মো. মেহেদী গতকাল কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘কারওয়ান বাজারে এখন মালের (সবজির) সংকট, বাড়তি দাম দিয়েও আমাদের পারাপারি করে মাল কিনে আনতে হচ্ছে।’

সরকারি সংস্থা টিসিবির গতকালের বাজারদরের তালিকায়ও সবজির দাম বাড়ার প্রমাণ পাওয়া গেছে। সংস্থাটি জানিয়েছে, রাজধানীর বাজারগুলোয় গত সপ্তাহের তুলনায় চলতি সপ্তাহে কাঁচা মরিচ কেজিতে ৪০ থেকে ৬০ টাকা বেড়ে ১৪০ থেকে ১৬০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। বেগুন কেজিতে ১০ টাকা বেড়ে ৫০ থেকে ৭০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

কারওয়ান বাজারের পাইকারি ব্যবসায়ী মো. সিরাজুল বলেন, এখন বগুড়া, যশোর, খুলনাসহ প্রায় সব জেলা থেকে সবজি কম আসছে। এক-দেড় মাস আগে থেকে চলছে দাবদাহ। নেই বৃষ্টি। এ কারণে সবজি উৎপাদনকারী বিভিন্ন জেলায় ফসল নষ্ট হয়ে উৎপাদন কমে গেছে। উৎপাদন কম হওয়ায় কৃষকের কাছ থেকে বেশি দামে সবজি কিনতে হচ্ছে। অন্য বছর এই সময় উত্তরবঙ্গ থেকে আসা সবজিতে কারওয়ান বাজার ভরে থাকত।

বাড্ডা কাঁচাবাজারে কথা হয় ক্রেতা সারোয়ার হোসেনের সঙ্গে। কালের কণ্ঠকে তিনি বলেন, ‘চাল, ডাল, তেল, চিনিসহ সব পণ্যের দাম বাড়তি। এত দিন পেঁয়াজ ও সবজির দাম কিছুটা কম ছিল। এখন এসব পণ্যও লাগামহীন হয়ে পড়েছে। খুবই কষ্টে আছে আমাদের মতো স্বল্প আয়ের মানুষ। পরিবারের খরচ ৪০ শতাংশ কমিয়েও সংসার চালাতে পারছি না। আমাদের কষ্ট দেখার কেউ নেই।’

বগুড়ায় কৃষক ও পাইকারি পর্যায়ে সবজির দাম বাড়তি : বগুড়ায় এক সপ্তাহের ব্যবধানে কৃষক পর্যায়ে ও পাইকারি বাজারে সবজির দাম অনেক বেড়েছে। কৃষক ও ব্যবসায়ীরা জানান, জমিতে সবজি উৎপাদন কমে যাওয়ায় বাজারে সরবরাহ কমেছে। এ কারণে সব সবজির দাম বেড়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার বগুড়ার মহাস্থান হাট ঘুরে দেখা যায়, কৃষক তাঁদের উৎপাদিত করলা প্রতি মণ বিক্রি করছেন দুই হাজার ৮০০ থেকে তিন হাজার টাকায়। পটোল বিক্রি হয়েছে দুই হাজার ৫০০ থেকে দুই হাজার ৬০০ টাকা মণ দরে, টমেটো ৮০০ থেকে এক হাজার টাকা মণ, বেগুন প্রকারভেদে এক হাজার ৬০০ থেকে দুই হাজার ৪০০ টাকা মণ, ঢেঁড়স এক হাজার ২০০ থেকে এক হাজার ৪০০ টাকা মণ, শজনে চার হাজার টাকা মণ, কাঁচা মরিচ প্রতি মণ বিক্রি হয়েছে চার হাজার ৮০০ টাকায়, পেঁপে এক হাজার ২০০ থেকে এক হাজার ৪০০ টাকা মণ, মুলা ৮০০ থেকে এক হাজার টাকা মণ, কচুর লতি এক হাজার ৫০০ থেকে এক হাজার ৬০০ টাকা মণ, শসা প্রকারভেদে এক হাজার ২০০ থেকে এক হাজার ৪০০ টাকা মণ, পাকরি জাতের আলু বিক্রি হয়েছে এক হাজার ৪০০ টাকা এবং কার্ডিনাল এক হাজার টাকা মণ।

মহাস্থান হাটে বেগুন বিক্রি করতে আসা শিবগঞ্জ উপজেলার অর্জুনপুর গ্রামের কৃষক জাহিদুল ইসলাম বলেন, ‘বাজারোত দাম বেশি হলে কী হবি, ভিঁওত (জমিতে) তো ফলন নাই। ফলন বেশি হলে দাম এমনিতেই কমে আসলোহিনি।’

চক ভোলাখা গ্রামের কৃষক মোজাম্মেল হক মোজা করলা বিক্রি করতে এসেছিলেন মহাস্থান হাটে। তিনি বলেন, ‘গরমে ভিঁওত তো গাছই টিকিচ্চে না, ফুল আসপি কী করে? আর ফুল না ধরলে তো ফলন হবিনে। সামান্য করে ফলন হচ্চে, তাই দাম বেশি।’

মহাস্থান হাটের পাইকারি সবজি ব্যবসায়ী মা সফুরা ভাণ্ডারের স্বত্বাধিকারী শাহাদৎ হোসেন এবং বিশাল ভাণ্ডারের স্বত্বাধিকারী পুটু মিয়া জানান, এক মাসের ব্যবধানে বাজারে সবজির আমদানি অর্ধেকে নেমে এসেছে। সবজি আমদানি কম হওয়ায় প্রতি হাটেই তুলনামূলক দাম বাড়ছে।

গতকাল বগুড়ার কাঁচাবাজার রাজাবাজার ঘুরে দেখা গেছে, করলার পাল্লা বিক্রি হয়েছে ৩৫০ থেকে ৪০০ টাকায়, পটোল ৩০০ থেকে ৩৫০ টাকা পাল্লা, মিষ্টিকুমড়া ১১০ থেকে ১২০ টাকা পাল্লা, টমেটো ১৬০ টাকা পাল্লা, বেগুন প্রকারভেদে ২৫০ থেকে ৩৫০ টাকা পাল্লা, ঢেঁড়স ২০০ টাকা পাল্লা, শজনে ৫০০ টাকা পাল্লা, কাঁচা মরিচ ৬০০ টাকা পাল্লা, পেঁপে ১৭৫ থেকে ২৫০ টাকা পাল্লা, মুলা ১৫০ টাকা পাল্লা, কচুর লতি ৩০০ টাকা পাল্লা, শসা ১৫০ থেকে ২০০ টাকা পাল্লা, পাকরি জাতের আলু ২৮০ টাকা এবং কার্ডিনাল আলু ২০০ টাকা পাল্লা দরে বিক্রি হয়েছে।

বগুড়া জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক মতলুবুর রহমান খরার কারণে সবজির উৎপাদন ও আমদানি কম হওয়ার বিষয়টি স্বীকার করে বলেন, ‘বগুড়ায় চলতি মৌসুমে প্রায় ১৪ হাজার হেক্টর জমিতে সবজি চাষ করা হয়েছে। কৃষকরা এখন যে দাম পাচ্ছেন তা উৎপাদন খরচের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ রয়েছে।’

উৎপাদন পর্যায়ে কাঁচা মরিচ ও পেঁপের বাড়তি দাম : মানিকগঞ্জের বড় বাজারে মরিচের কেজি ১৬০ টাকা। আর মানভেদে পেঁপের কেজি ৮০ টাকা। অথচ মানিকগঞ্জের কয়েকটি উপজেলায় বাণিজ্যিকভাবে মরিচ ও পেঁপের চাষ করা হয়। কিন্তু খরা ও অসহনীয় গরমের কারণে এই মৌসুমে মরিচের উৎপাদন অর্ধেক হয়েছে। পেঁপের উৎপাদনও কম। পর্যাপ্ত সরবরাহ না থাকায় বাজারে এ দুটি পণ্যের দাম আকাশছোঁয়া। তবে কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগ বলছে, গত দুই দিন বৃষ্টি হওয়ায় কয়েক দিনের মধ্যে উৎপাদন বেড়ে কাঁচা মরিচ ও পেঁপের বাজার সহনীয় হয়ে যাবে।

মানিকগঞ্জে কাঁচা মরিচের সবচেয়ে বড় হাট বরঙ্গাইল হাট। শিবালয়, ঘিওর ও হরিরামপুর উপজেলায় উৎপাদিত মরিচ পাইকারি পর্যায়ে এই হাটে বিক্রি করা হয়। গতকাল বিকেলে ওই হাটে গিয়ে দেখা গেছে, পাইকারিতে প্রতি কেজি কাঁচা মরিচ বিক্রি হয়েছে ১১০ থেকে ১২০ টাকায়। ঘিওর উপজেলার সায়েদুর রহমান জানান, এবার খরার কারণে স্বাভাবিক উৎপাদন অর্ধেকে নেমেছে। ফলে বাজারে কাঁচা মরিচের সংকট সৃষ্টি হয়ে দাম বেড়েছে।

(প্রতিবেদনটি তৈরিতে তথ্য দিয়েছে কালের কণ্ঠ’র বগুড়া অফিস ও মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি)

Please Share This Post in Your Social Media

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

এই বিভাগের আরো সংবাদ
দৈনিক সময়ের সংবাদ.কম প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Theme Customized BY NewsFresh.Com
WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com