সু চির ‘ফ্রিডম অব অক্সফোর্ড’ সম্মাননা প্রত্যাহার

120171003210425

মিয়ানমারে রোহিঙ্গা নিপীড়ন নিয়ে সমালোচনার মধ্যে থাকা অং সান সু চির ‘ফ্রিডম অব দি সিটি অব অক্সফোর্ড অ্যাওয়ার্ড’ প্রত্যাহার করেছে শহর কর্তৃপক্ষ। এখন আর তার জন্য এ সম্মাননা ‘যথোপযুক্ত নয়’ বলে সিটি কাউন্সিলে একটি প্রস্তাব পাস হওয়ার কথা জানিয়েছে বিবিসি।

মিয়ানমারের গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠায় দীর্ঘ সংগ্রামের স্বীকৃতি হিসেবে ১৯৯৭ সালে তাকে এই সম্মাননা জানিয়েছিল যুক্তরাজ্যের অক্সফোর্ড সিটি কাউন্সিল।

মিয়ানমারের রাখাইনে সেনাবাহিনীর দমন অভিযানের মুখে লাখ লাখ রোহিঙ্গার পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়ার প্রেক্ষাপটে বিশ্বজুড়ে সমালোচনার মুখে পড়েছেন দেশটির স্টেট কাউন্সিলর পদ নিয়ে কার্যত সরকারপ্রধান অং সান সু চি।

রাষ্ট্রীয় বাহিনীর এই নিষ্ঠুরতা ঠেকাতে কার্যকর পদক্ষেপ না নেওয়ায় সমালোচিত সু চিকে দেওয়া সম্মাননা গত মাসে স্থগিত করে যুক্তরাজ্যের দ্বিতীয় বৃহত্তম ট্রেড ইউনিয়ন- ইউনিসন।

গত সপ্তাহে অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটির সেন্ট হিউ কলেজ থেকে সু চির প্রতিকৃতি সরিয়ে নেওয়া হয়। কলেজটির মূল ভবনের প্রবেশপথে থাকা তার ছবির জায়গায় জাপানি একজন চিত্রকরের একটি চিত্রকর্ম বসানো হয়েছে।

সু চির সম্মাননা প্রত্যাহারের প্রস্তাবে সমর্থনকারী অক্সফোর্ড সিটি কাউন্সিলের নেতা বব প্রাইস বলছেন, মিয়ানমারের পরিস্থিতি নিয়ে মানুষ ‘চরম ক্ষুব্ধ’ এবং দেশটিতে বর্বরতার খবর নিয়ে তার কথা না বলাটা খুবই অস্বাভাবিক।

গ্লাসগো, বাথ, কেমব্রিজসহ যুক্তরাজ্যের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় গত ৩০ বছরে মিয়ানমারের গণতন্ত্রের প্রতীক সু চিকে সম্মানসূচক ডিগ্রি দিয়েছে। পাশাপাশি কয়েকটি শহর ও প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকেও তাকে সম্মাননা দেওয়া হয়েছে।

গণতন্ত্রের দাবিতে অহিংস আন্দোলনের জন্য ১৯৯১ সালে নোবেল শান্তি পুরস্কার পাওয়া সু চি ২০১০ সালে গৃহবন্দি দশা থেকে মুক্তি পান।

print

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*


*

x

Check Also

Screenshot_11-25-678x381

৮০ বছর বয়সী ছেলেকে বৃদ্ধাশ্রমে দেখাশোনা করতে গেলেন ৯৮ বছর বয়সী মা

মা আর ছেলের বন্ধনের মত সেরা বন্ধন পৃথিবীতে আর কিছুই নাই। এই গল্পটা ঠিক সেটারই প্রমাণ! অ্যাডা কেটিং, ৯৮ বছর বয়সী এক মা, নিজের ৮০ বছর বয়সী ছেলেকে দেখাশোনা করতে লিভারপুলে ছেলের বৃদ্ধাশ্রমে গেলেন এবং সবকিছুই যেন স্বাভাবিক হয়ে উঠলো! অ্যাডা এবং তার মৃত স্বামী হ্যারির চারটি সন্তান – টম, বারবারা, মার্গি, জ্যানেট। টম একজন পেইণ্টার ছিলেন। ২০১৬ সালে যখন সে ওল্ড হোমে আসেন তখন তার অনেক সেবাযত্নের দরকার ছিলো। ওল্ড হোমে মা ছেলে হয়ে উঠেন অবিচ্ছেদ্য। তারা একসাথে খেলাধুলা করেন এবং টিভি অনুষ্ঠান দেখেন। অ্যাডা বলেন, ‘আমি টমকে প্রতিদিন রাতে শুভ রাত্রি জানাই এবং প্রতিদিন সকালে শুভ সকাল বলি’। ...

strange-story-1325

ট্রাম্পের নামে টয়লেট পেপার!

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের নামে টয়লেট পেপার বাজারে আনছে মধ্য আমেরিকার দেশ মেক্সিকো। এ প্রসঙ্গে দেশটির এক আইনজীবী জানান, ট্রাম্পের সমালোচনার মাধ্যম হিসেবে দেশটিতে মার্কিন প্রেসিডেন্টের নামে টয়লেট পেপার বিক্রি হবে। এন্তোনিও বাটাগলিয়া নামের এই আইনজীবী ২০১৫ সালে ট্রাম্প নামে টয়লেট পেপার বাজারে ছাড়ার পরিকল্পনা করেন। সে সময়েই মার্কিন ধনকুবের প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হিসেবে প্রচারণাকালে মেক্সিকোর অভিবাসীদের কটাক্ষ করে বক্তব্য দেন। প্রচারণার সময় ট্রাম্প বলেন, মেক্সিকো যখন এদেশে লোক পাঠায়, তখন তাদের সেরা লোককে পাঠায় না। তাদেরই পাঠায় যাদের নিয়ে খোদ মেক্সিকো সমস্যায় থাকে। সেসব মানুষ এদেশে এসে মাদক, সন্ত্রাসের মতো অপরাধে জড়িত হয়। এই বছরের শেষ নাগাদ ট্রাম্প টয়লেট পেপার ...

Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com