বাংলাদেশে গরু প্রবেশ বন্ধে ভারত হারাচ্ছে সাড়ে ৭ হাজার কোটি

cow_

ঈদুল আজহা উপলক্ষে সীমান্তে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর কড়া পাহারার কারণে বাংলাদেশে গরু আসা অনেক কমেছে। সম্প্রতি ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম দ্য হিন্দু বিজনেস লাইনের প্রতিবেদন অনুযায়ী- এবারের ঈদে বাংলাদেশে গরু প্রবেশ কমেছে প্রায় ৭৫ ভাগ।

ঈদের সময় ভারত বাংলাদেশে গরু পাঠিয়ে বা বিক্রি করে আয় করে ৯ হাজার কোটি রুপি। এবার তা কমে এক হাজার ৬০০ কোটি রুপিতে দাঁড়িয়েছে। ফলে প্রায় সাড়ে সাত হাজার কোটি রুপির বাজার হারাতে হচ্ছে ভারতকে। গত মঙ্গলবার প্রকাশিত প্রতিবেদনটিতে এ তথ্য জানা গেছে।

ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বাংলাদেশে আগামী ২ সেপ্টেম্বর পবিত্র ঈদুল আজহা উদযাপিত হবে। সাধারণত এই ঈদে পশ্চিমবঙ্গের অ্যাংরাইল সীমান্ত দিয়ে অবৈধ পথে গবাদি পশু চালানে ব্যস্ত থাকেন গোপাল বোস (৩০)। কিন্তু এ বছর চিত্র সম্পূর্ণ পাল্টে গেছে।

আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কঠোর নজরদারির কারণে চলতি বছর বাংলাদেশে ভারতীয় গবাদি পশু পাঠানো কমে দাঁড়িয়েছে চার-পাঁচ লাখে। আগে পাঠানো হতো ২০ থেক ২২ লাখ। রিপোর্টে বলা হয়, বাংলাদেশে এ সময়ে গবাদি পশুর চাহিদা প্রায় ৮৮ লাখ। কয়েক বছর ধরে এই চাহিদার এক-চতুর্থাংশের যোগান দিয়ে আসছে ভারত। বেশির ভাগ গবাদি পশু (গরু) বাংলাদেশে পাঠানো হয় হরিয়ানা, উত্তর প্রদেশ ও রাজস্থান থেকে।
বাংলাদেশের সঙ্গে ভারতের চার হাজার ৯৬ কিলোমিটার সীমান্তের ফাঁকফোকর দিয়ে এসব গরু পাঠানো হয়। এ ক্ষেত্রে বাংলাদেশে কোনো বাধা নেই। গড়ে এ সময়ে প্রতিদিন পাঁচ হাজার পশু পাঠানো হয় বাংলাদেশে। এভাবে গরু বা গবাদি পশু বাংলাদেশে পাঠানোর একটি গুরুত্বপূর্ণ স্পট হলো ভারতের উত্তর ২৪ পরগনা জেলার অ্যাংরাইল। ইছামতী নদী দিয়ে গোপাল বোস গবাদি পশু বাংলাদেশে পাঠানোর চেষ্টা করতেন এবারও। কিন্তু ওই অ্যাংরাইল সীমান্তসহ অন্যান্য পয়েন্টের চেহারা পাল্টে গেছে এবার। তাই বাংলাদেশে প্রতিদিন পাঁচ হাজার গরু আসার কথা থাকলেও এখন আসছে মাত্র ৫০০ গরু। তাছাড়া বিএসএফ ও পুলিশের কড়া তৎপরতার কারণে এ বছর গোপাল বোস ব্যবসা থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন।

print

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*


*

x

Check Also

রোহিঙ্গা গ্রামগুলো পুড়ে ছাই : কূটনীতিকদের বিবৃতি

মিয়ানমারে কর্মরত অধিকাংশ পশ্চিমা দেশসহ ২০ দেশের রাষ্ট্রদূত এক যুক্ত বিবৃতিতে বলেছেন, তারা মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যের রোহিঙ্গা গ্রামগুলো পরিদর্শনকালে দেখেছেন যে তাদের বাড়ি-ঘর পুড়ে ছাই। আজ বসতবাড়ির বাসিন্দারা অন্য কোথাও পালিয়ে গেছে এবং তারা সেনাবাহিনীর সহিংসতায় ধ্বংসযজ্ঞের দৃশ্য দেখেছেন। গতকাল ওই অঞ্চলে মিয়ানমার সরকারের সহযোগিতায় রাখাইন সফর শেষে কূটনীতিকরা বলেন, ‘আমরা দেখেছি গ্রামগুলো পুড়ে গেছে এবং সেখানে কোন মানুষজন নেই… সেখানকার সহিংসতা অবশ্যই থামাতে হবে।’ কূটনীতিকরা বলেন, ‘আমরা ওই সফরে ভয়াবহ মানবিক বিপর্যয় দেখেছি’ এবং ‘আমরা আরেকবার আহ্বান জানাচ্ছি সেখানে যেন মানুষ নির্বিঘেœ বসবাস করতে পারে। পাশাপাশি ওই রাজ্যে জীবনরক্ষাকারী সেবা পৌছাতে হবে এবং অন্য রাজ্যের সাথে কোন বৈষম্য রাখা ...

russia-death-body-eat

যেভাবে ধরা পড়লেন সেই মানুষ খেকো স্বামী-স্ত্রী

রাশিয়ার নরখাদক পরিবারটির বক্তব্য শুনলে শরীর শীতল হয়ে যায়। এই পরিবারের সবাই মানুষ খায়। এই মানুষখেকো দম্পতি প্রায় ৩০ জনকে হত্যা করেছে বলে স্বীকার করেছে । ৩৫ বছর বয়সী দিমিত্রি বাকশেভ এবং তার স্ত্রী নাতালিয়া যে জায়গায় বসবাস করেন সে সামরিক ঘাঁটিতে কাঁটা-ছেড়া ও অঙ্গহীন একটি লাশ পাওয়া গেলে তাদের গ্রেফতার করা হয়। পুলিশ জানিয়েছে, তাদের বাসস্থানে তল্লাশি করে পাওয়া বেশকিছু খাদ্যদ্রব্য ও মাংসের ডিএনএ পরীক্ষা করা হচ্ছে। এ মাসের শুরুর দিকে সড়ক নির্মাণ শ্রমিকদের রাস্তার পাশে ফেলে যাওয়া একটি মোবাইলের ছবিতে শরীরের কাঁটা-ছেড়া অঙ্গের বেশকিছু গ্রাফিক চিত্র পাওয়া গেছে। এর আগে রাশিয়ান গণমাধ্যমে প্রকাশিত একটি ছবিতে দেখা গেছে মিঃ ...

Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com