কুড়িগ্রাম ও রংপুরের বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি, জামালপুর, গাইবান্ধা, বগুড়া ও সিরাজগঞ্জে অবনতি

2017-08-16_6_125952

দেশের উত্তর অঞ্চলের বর্তমান বন্যা পরিস্থিতি ব্রহ্মপুত্র নদীর উজানের অংশে (কুড়িগ্রাম, রংপুর) উন্নতি হলেও জামালপুর, গাইবান্ধা, বগুড়া, সিরাজগঞ্জে পরিস্থিতি অবনতিশীল রয়েছে। এই বন্যা দেশের মধ্যাঞ্চল ও দক্ষিণ-মধ্যাঞ্চলে বিস্তৃতি লাভ করার আশংকা রয়েছে।
গঙ্গা অববাহিকার পানি বৃদ্ধি পেলেও তা বিপদসীমার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। মধ্যাঞ্চলের ঢাকার চতুর্দিকের ৫টি নদীর পানি বিপদসীমার ৩৮ সে.মি হতে ১৩৬ সে.মি নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে ।
বাংলাদেশের পানি উন্নয়ন বোর্ডের বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আজ এ কথা জানানো হয়।
দেশের বিভিন্ন নদ-নদীর পানি প্রবাহের ৯০টি সমতল স্টেশনের পর্যবেক্ষন অনুযায়ী ৬০টি পয়েন্টের পানি বৃদ্ধি পেয়েছে, হ্রাস পেয়েছে ২৬টি পয়েন্টে এবং ৪টি পয়েন্টের পানি প্রবাহ অপরিবর্তিত রয়েছে।
বুধবার সকাল ৯ টা পর্যন্ত গত ২৪ ঘন্টায় ৯০টি সমতল স্টেশনের পর্যবেক্ষন অনুযায়ী ২৯ পয়েন্টের পানি বিপদ সীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।
ব্রহ্মপুত্র-যমুনার ভারতীয় অংশের আগামী ২৪ থেকে ৩৬ ঘণ্টায় গড়ে ২৫ সেন্টিমিটার পানি হ্রাস পেতে পারে । বাংলাদেশ অংশের উজানে (নুনখাওয়া, চিলমারী) আগামী ৪৮ ঘণ্টায় হ্রাস অব্যাহত থাকবে। ভাটির অংশে, বাহাদুরাবাদ পয়েন্টে বর্তমানে স্থিতিশীল রয়েছে যা আগামী ২৪ ঘন্টায় কমতে শুরু করবে এবং সারিয়াকান্দি ও সিরাজগঞ্জ পয়েন্টে আগামী ২৪ ঘন্টায় স্থির হয়ে পরবর্তীতে হ্রাস পেতে শুরু করবে।
এদিকে গঙ্গা-পদ্মা নদীর পানি সমতলে বৃদ্ধি আগামী ৭২ ঘণ্টায় অব্যাহত থাকবে, তবে তা বিপদসীমার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হবে। এই অববাহিকার উজানে নেপালে ও বিহারে বন্যা পরিস্থিতি থাকার ফলে পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকবে ।
মেঘনা অববাহিকার নদীর পানি আগামী ২৪ থেকে ৪৮ ঘন্টায় হ্রাস অব্যাহত থাকবে।
বাংলাদেশের উজানের তিনটি অববাহিকার মধ্যে গঙ্গায় পানি বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে, ব্রহ্মপুত্রের উজানের তিনটি পয়েন্টে (গোহাটি, পান্ডু,গোয়ালপাড়া) পানি হ্রাস পাচ্ছে ও ধুবরী পয়েন্ট পানি স্থিতিশীল রয়েছে। অপরদিকে মেঘনা অববাহিকায় পানি হ্রাস অব্যাহত আছে। আজ সকাল ৬টা পর্যন্ত বিগত ২৪ ঘণ্টায় ব্রহ্মপুত্র-যমুনা নদীর ভারতীয় অংশের গোহাটিতে (বাংলাদেশ সীমান্ত হতে ১৮০ কি.মি. উজানে) ২৯ সে.মি, পান্ডুতে (বাংলাদেশ সীমান্ত হতে ১৬০ কি.মি. উজানে) ২৪ সে.মি , গোয়ালপাড়ায় (বাংলাদেশ সীমান্ত হতে ৯০ কি.মি. উজানে) ৯ সে.মি হ্রাস পেয়েছে এবং ধুবরীতে (বাংলাদেশ সীমান্ত হতে ২৫ কি.মি. উজানে) ৩ সেমি. বৃদ্ধি পেয়েছে তবে গতকাল সন্ধ্যা হতে ধুবরী পয়েন্টে পানি স্থিতিশীল রয়েছে ।
বাংলাদেশের অভ্যন্তরে ব্রহ্মপুত্রের কুড়িগ্রামের নুনখাওয়া ও চিলমারী পয়েণ্টে পানি হ্রাস পেয়েছে, বাহাদুরাবাদ পয়েন্টে স্থিতিশীল রয়েছে এবং সারিয়াকান্দি, সিরাজগঞ্জ, আরিচা পয়েন্টে পানি বৃদ্ধি পেয়েছে ।
মেঘনা অববাহিকার ভারতীয় অংশে পানি হ্রাস অব্যাহত রয়েছে , ফলে বাংলাদেশের অভ্যন্তরে মেঘনা অববাহিকার অধিকাংশ নদীর পানিও হ্রাস অব্যাহত আছে।
দেশের উত্তরাঞ্চলের ব্রহ্মপুত্র-যমুনা অববাহিকার (উজানের অংশ ব্যতীত) বন্যা পরিস্থিতি অবনতিশীল রয়েছে।
তিস্তা-ধরলা-দুধকুমার অববাহিকার নদীর পানি হ্রাস অব্যাহত রয়েছে, এই অঞ্চলের বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি অব্যাহত থাকবে ।
গঙ্গা-পদ্মা নদীর পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকলেও তা বর্তমানে বিপদসীমার প্রায় ০.৭৫ থেকে ১.৫০ মিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।
মেঘনা অববাহিকায় বন্যা পরিস্থিতি আগামী ২৪ থেকে ৪৮ ঘণ্টায় উন্নতি অব্যাহত থাকবে ।

print

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*


*

x

Check Also

095006Rangpur_KalerKantho

রংপুরে বাসচাপায় প্রাণ হারালেন অটোরিকশার ৩ যাত্রী

  রংপুর শহরের হাজীরহাট এলাকায় হানিফ পরিবহনের একটি বাসের চাপায় ইজিবাইকের ৩ যাত্রী নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরো ৩ জন। আজ রবিবার সকাল ৭টার দিকে হাজীরহাট ব্রিজ সংলগ্ন আকিজ কোম্পানির সামনের সড়কে এ দুর্ঘটনা ঘটে। জানা গেছে, ঢাকা থেকে ঠাকুরগাঁওগামী হানিফ এন্টারপ্রাইজের একটি নৈশকোচ ঘটনাস্থলে পৌঁছে যাত্রীবোঝাই একটি ইজিবাইককে চাপা দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই দুইজন ও হাসপাতালে নেওয়ার পর একজন মারা যান। রংপুর কোতোয়ালী থানার এসআই মনোয়ার হোসেন সাংবাদিকদের কাছে এ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেছেন, মরদেহগুলি উদ্ধার করে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ (রমেক) হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। নিহতদের মধ্যে দু’জনের পরিচয় পাওয়া গেছে।

এক রুটিতে দিন পার করা সেই ছেলেটি আজ বিসিএস ক্যাডার!

বিসিএসের মৌখিক পরীক্ষায় যাওয়ার মতো ভালো কোনো পোশাক ছিল না ছেলেটির। এক বন্ধু তখন পাশে এসে দাঁড়ায়। আর চাকরি পাওয়ার আগ পর্যন্ত কোনো দিন সকালে নাশতা করেননি। শুধু দুপুরের দিকে পাঁচ টাকা দামের একটা পাউরুটি খেয়ে দিন পার করতেন। সেই ছেলেটিই আজ বিসিএস ক্যাডার। শুনুনু তাহলে অদম্য সেই ছেলেটির গল্প- আবু সায়েমের বাড়ি কুড়িগ্রামে। বাবা অন্যের জমিতে কাজ করতেন। সে আয়ে তিনবেলা ভাত জুটত না। বাড়তি আয়ের জন্য মা কাঁথা সেলাই করতেন। তারপর সে কাঁথা বাড়ি বাড়ি বিক্রি করতেন। কত দিন কত রাত সায়েম যে না খেয়ে কাটিয়েছেন, সে হিসাব নিজেও জানেন না। আজ সায়েমের কষ্টের দিন ঘুচেছে। ৩৫তম বিসিএসে ...

Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com